Wednesday, June 19, 2024
Homeগোয়েন্দা গল্পএকপাটি জুতো - হেমেন্দ্রকুমার রায়

একপাটি জুতো – হেমেন্দ্রকুমার রায়

একটা তদন্ত সেরে বাড়িমুখো হয়েছে জয়ন্ত ও মানিক৷ সঙ্গে এক জন সেপাই ও এক জন দারোগা৷ রাস্তা দিয়ে তারা গল্প করতে করতে আসছে, হঠাৎ একখানা বাড়ির দোতলা থেকে ডাক এল- ‘ও জয়ন্ত, ও মানিক!’

তারা মুখ তুলে দেখে, বারান্দার উপরে দাঁড়িয়ে আছে তাদের পুরাতন বন্ধু নবীনচন্দ্র৷ সে জমিদার৷ জয়ন্ত ও মানিককে নিয়ে মাঝে মাঝে নিজের জমিদারিতে শিকার করতে যায়৷

জয়ন্ত বললে, ‘কী খবর নবীন?’

নবীন বললে, ‘তোমার সঙ্গে একটু পরামর্শ আছে৷ ভিতরে এসে বৈঠকখানায় বসো৷ আমি যাচ্ছি৷’

বৈঠকখানায় ঢুকেই জয়ন্তের হুঁশিয়ার চোখ দেখলে দুটো ব্যাপার৷ দেওয়ালের বড়ো ঘড়িটা নামিয়ে রাখা হয়েছে মেঝের উপর৷ এবং পূর্বদিকের জানালায় একটা গরাদ নেই, সেটাকেও কে খুলে মেঝের উপর ফেলে রেখেছে৷ জানালার কাছে গিয়ে সে বুঝতে পারলে, জানালার তলাকার কাঠের ফ্রেমে বাটালি বা কোনো অস্ত্র চালিয়ে কেউ স্থানচ্যুত করেছে গরাদটাকে৷

সে ফিরে বললে, ‘মানিক, এই ঘরে কেউ অনধিকার প্রবেশ করেছে৷ নবীন বোধ হয় সেইজন্যেই আমাদের সঙ্গে পরামর্শ করতে চায়৷’

-‘ঠিক আন্দাজ করেছ জয়ন্ত৷ সেই জন্যেই আমি তোমাকে ডেকেছি বটে৷’ -বলতে বলতে নবীন ঘরের ভিতর এসে দাঁড়াল৷

আসন গ্রহণ করলে সকলে৷ বেয়ারাকে চা, টোস্ট, এগপোচ আনবার হুকুম দিয়ে নবীন বললে, কাল রাতে এই ঘরে চুরি হয়ে গিয়েছে৷ গুরুতর চুরি নয়, তোমার মতো ধুরন্ধর গোয়েন্দার কাছে ব্যাপার তুচ্ছ বলেই মনে হবে৷ চুরি গিয়েছে আমার একটি রেডিয়ো৷’

মানিক বিস্মিত স্বরে বললে, ‘তোমার ঘরে রেডিয়ো!’

নবীন হেসে বললে, ‘হ্যাঁ মানিক৷ তোমরা সকলেই জানো, রেডিয়োর একটানা একঘেয়ে ঘ্যানঘ্যানানি আমার ধাতে সহ্য হয় না, তাই এত দিন এ বাড়িতে রেডিয়োর ছিল না কোনো ঠাঁই৷ কিন্তু বড়ো মেয়েটা রেডিয়োর জন্যে এমন বিষম আবদার ধরেছে যে, কাল বৈকালে নগদ আটশত পঞ্চাশ টাকা মূল্য দিয়ে একটা রেডিয়ো না কিনে এনে আর পারা গেল না৷ যন্ত্রটা টেবিলের উপর রেখে ঘর থেকে চলে গিয়েছিলাম৷ কিন্তু চোর তাকে এখানে রাত্রিবাসও করতে দেয়নি৷’

জয়ন্ত বললে, ‘চোর এসেছে ওই গরাদটা খুলে?’

-‘হ্যাঁ৷’

-‘পূর্বদিকের ওই সরু গলিটা কী?’

-‘মেথর আসবার পথ৷ চোর বেশ নিশ্চিন্ত হয়ে ওই গলিতে দাঁড়িয়ে ফ্রেম কেটে গরাদ খোলবার সুযোগ পেয়েছিল৷’

-‘ঘড়িটা মেঝের উপর নামানো কেন?’

-‘ওটাও চোরের কীর্তি৷ তার ইচ্ছা ঘড়িটাও সঙ্গে করে নিয়ে যাবে৷ কিন্তু ঘরের ভিতরে সন্দেহজনক শব্দ শুনে বেয়ারা এসে পড়ায় সে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে৷ তাড়াতাড়ি পালাবার সময়ে সে নিজের একপাটি জুতোও নিয়ে যেতে পারেনি৷’

এইবার জয়ন্ত কিঞ্চিৎ আগ্রহ প্রকাশ করে বললে, ‘জুতো? কোথায় সেই জুতো?’

-‘ওই যে, জানালার তলাতেই পড়ে রয়েছে৷’

জয়ন্ত এগিয়ে গিয়ে জুতোর পাটিটা তুলে নিলে, বেশ মনোযোগ দিয়ে পরীক্ষা করলে প্রায় পাঁচ মিনিট ধরে৷ তারপর মুখ তুলে ধীরে ধীরে বললে, ‘নবীন এ হচ্ছে এমন কোনো লোকের জুতো যার ডান পদতল বিকৃত, জুতোর বেডৌল গড়ন দেখেই তা ধরা যায়৷ বাটার কারখানায় তৈরি সস্তা দামের ছয় নম্বরের রবারের জুতো৷ এর ভিতরে সাদা সাদা কী রয়েছে দেখেছ?’

-‘বোধ হয় গুঁড়ো চুন!’

জয়ন্ত মুখে কিছু না বলে মাথা নেড়ে জানালে, না৷

বেয়ারা চা প্রভৃতি নিয়ে এল এমন সময়ে৷

একটা টেবিলের কাছে গিয়ে জয়ন্ত বলল, ‘রেডিয়োটা কাল রাতে এই টেবিলের উপরে ছিল তো? বেশ, আমি এইখানে বসেই চা পান করব৷’

জয়ন্ত নীরবে চা ও খাবার খেতে খেতে উত্তর দিকে জানালাগুলো দিয়ে বারংবার রাস্তার দিকে দৃষ্টিপাত করতে লাগল৷

পানাহার শেষ করে জয়ন্ত বললে, ‘নবীন, তোমার বাড়িতে রেডিয়োর গণ্ডগোল কেউ কোনোদিন শোনেনি; এ বাড়িতে ওই উপসর্গ আছে, বাইরের লোকেরা এমন সন্দেহ করতে পারে না৷ অথচ যেদিন তুমি রেডিয়ো কিনেছ, ঠিক সেইদিনই তা চুরি হয়ে গেল৷ সুতরাং বেশ বোঝা যায় এ হচ্ছে পাড়ার কোনো সন্ধানী চোরের কাণ্ড৷ যন্ত্রটা সে বৈকালেই রাস্তা থেকে দেখতে পেয়েছিল৷’

নবীন বললে, ‘কিন্তু সে যে কে, বুঝতে পারব কেমন করে?’

-‘এখান থেকে রাস্তার ওপারে দেখতে পাচ্ছি দু-খানা বাড়ি৷ ও বাড়ি দু-খানা কাদের?’

-‘লাল বাড়িখানায় থাকেন হাইকোর্টের এক উকিল৷ পাশের হলদে বাড়িখানা ভাড়াটেবাড়ি৷ একখানা কি দু-খানা ঘর নিয়ে ওখানে বাস করে ছয়-সাতটি পরিবার৷ আমাদের সরকারবাবুও থাকেন ওই বাড়ির দোতলায়৷’

-‘বটে, বটে! একবার তাঁকে এখানে আসতে বলবে?’

অবিলম্বে সরকারবাবুর প্রবেশ৷ জয়ন্ত শুধোলে, আপনার নাম?’

-‘শ্রী বিনয়কুমার প্রামাণিক৷’

-‘সামনে ওই বাড়িতে কতদিন বাস করছেন?’

-‘প্রায় তিন বৎসর৷’

-‘ওখানকার আর সব ভাড়াটেকে আপনি চেনেন?’

-‘আজ্ঞে হ্যাঁ৷ প্রায় সকলকেই৷’

-‘দোতলায় আপনার সঙ্গে থাকেন কারা?’

-‘পরিবার নিয়ে আর তিন ভদ্রলোক৷’

-‘তাঁদের পেশা?’

-‘দু-জন কেরানি, এক জন স্কুলমাস্টার৷’

-‘নীচেয় কারা থাকেন?’

-‘সবাই পূর্ববঙ্গের লোক৷’

-‘তাঁরা কী কাজ করেন?’

-‘বেশির ভাগ লোকই কাটা কাপড়ের ব্যাবসা করে৷ এক জন কেবল শাঁখারিদের দোকানের কারিগর৷’

-‘নাম জানেন?’

-‘হ্যাঁ, দুলাল৷’

-‘বিনয়বাবু, একটা কাজ করুন৷ দয়া করে দুলালকে একবার এখানে ডেকে আনুন৷ তাকে বলবেন, নবীনবাবুর স্ত্রী দু-ডজন খুব ভালো শাঁখা কিনতে চান, তিনিই তাকে ডেকেছেন৷’

-‘যে আজ্ঞে৷’

সরকারের প্রস্থান৷ নবীন সবিস্ময়ে বললে, ‘তোমার এ কী অদ্ভুত খেয়াল জয়ন্ত৷ দু-ডজন কী, আমার স্ত্রী এক গাছাও শাঁখা কিনতে চান না৷’

-‘তোমার স্ত্রী আজ আলবত দু-ডজন শাঁখা কিনতে চান৷ তুমি জানো না৷’

-‘আমি জানি না, তুমি জানো?’

-‘নিশ্চয়৷’

-‘জয়ন্ত, তুমি একটি পাগল৷’

-‘নবীন, তুমি একটি সুবৃহৎ হাঁদারাম৷’

-‘মানে?’

-‘মানে এখনি বুঝতে পারবে৷’

-‘দেখা যাক৷ কিন্তু দু-ডজন শাঁখার দাম দিতে হবে তোমাকেই৷’

ঘরের বাইরে পদশব্দ৷ সরকারবাবুর পিছনে একটি মূর্তির আবির্ভাব৷ বয়স উনিশ-বিশের বেশি হবে না৷ সংকুচিত ভাবভঙ্গি, সন্দিগ্ধ দৃষ্টি৷ পরনে আধময়লা গেঞ্জি ও লুঙ্গি৷ খালি পা৷

জয়ন্ত শুধোলে, ‘তোমার নাম দুলাল?’

আগন্তুক ভয়ে ভয়ে বললে, ‘আজ্ঞে হ্যাঁ৷’

জয়ন্ত লক্ষ করলে, দুলালের ডান পায়ের পাতা এমনভাবে বিকৃত যে সোজা ভাবে মাটিতে পা ফেলে সে দাঁড়াতে পারে না৷ তার দুই পায়েরই নীচের দিকে লেগে রয়েছে সাদা সাদা কীসের গুঁড়ো!

জয়ন্ত বললে, ‘দুলাল আমার কাছে এসো৷’

দুলাল প্রায় খোঁড়াতে খোঁড়াতে এগিয়ে এল৷

ফস করে সেই রবারের জুতোর পাটি বার করে জয়ন্ত শান্ত স্বরে বললে, ‘দুলাল, কাল রাতে তোমার একপাটি জুতো এই ঘরে ফেলে রেখে গিয়েছিলে৷ ফিরিয়ে নাও তোমার জুতো৷’

প্রথমটা চমকে উঠে, তারপর সবেগে মাথা নেড়ে দুলাল বলে উঠল, ‘ও জুতো আমার নয়৷’

-‘জুতো তোমারই৷ পায়ে পরে দেখো-তোমার দুমড়ানো পায়ের সঙ্গে ঠিক খাপ খেয়ে যাবে৷’

দুলাল চুপ করে আড়ষ্ট হয়ে দাঁড়িয়ে রইল৷ তার মুখ ধরা-পড়া চোরের মতো৷

জয়ন্ত বললে, ‘নবীন, এই একপাটি জুতোর মধ্যেই আছে চোরের স্বাক্ষর৷ জুতোর ভিতরে যে সাদা গুঁড়োগুলোকে তুমি চুনের গুঁড়ো বলে ভ্রম করেছিলে, আসলে তা হাচ্ছে শাঁখের গুঁড়ো; আমি দেখেই বুঝতে পেরেছিলাম৷ শাঁখারিরা ঠিক দুই পায়ের উপর শাঁখ রেখে যখন করাত চালায় তখন তাদের দুই পায়ের উপরই ছড়িয়ে পড়ে শঙ্খচূর্ণ৷ দুলালের পায়ের দিকে তাকিয়ে দেখো- শাঁখের পাউডার মেখে ওর পদযুগল এখনও শ্বেতবর্ণ হয়ে রয়েছে৷ ওর দুই পদ জুতোর মধ্যে প্রবেশ করলে তার ভিতরেও লেগে থাকে শাঁখের গুঁড়ো৷ বেডৌল জুতোর পাটি পরীক্ষা করে খুব সহজেই ধরে ফেলেছিলাম যে, এর মালিক হচ্ছে এমন কোনো শাঁখারি, যার দক্ষিণ পদতল বিকৃত৷ তবু যদি দুলাল এখনও অপরাধ স্বীকার না করে, তুমি এই দারোগাবাবুটির সাহায্য নিতে পার৷ এসো মানিক, আমাদের এখন বিদায় নেবার সময় হয়েছে৷’

Inspire Literature
Inspire Literaturehttps://www.inspireliterature.com
Read your favourite inspire literature free forever on our blogging platform.
RELATED ARTICLES

Most Popular

Recent Comments